আজ সোমবার,২৫শে জানুয়ারি, ২০২১ ইং, ১২ই মাঘ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ, ১২ই জমাদিউস-সানি, ১৪৪২ হিজরী
>> থাকছে না, সাধারণ ছুটি চলবে গাড়ি নিত্য দিনের মতো চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশনের চসিক নির্বাচনে, >> চসিক নির্বাচনে বিজয়ী হলে চট্টগ্রামকে নতুনভাবে সাজানো হবে। স্বতন্ত্র মেয়রপ্রার্থী খোকন চৌধুরী, >> ৫ কোটি টাকার সোনা উদ্ধার ইউএস বাংলার যাত্রী সারোয়ারের কাছ থেকে, >> দুই গ্রুপ এ বিভক্ত শরণখোলা ছাত্রলীগ, একপক্ষের সংবাদ সম্মেলন >> বাইডেনের শপথ গ্রহণের মধ্য দিয়ে গণতন্ত্রের জয় হয়েছে: পররাষ্ট্রমন্ত্রী >> চসিক নির্বাচনে গণসংযোগ করেন ৪১নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর প্রার্থী আলহাজ্ব সালেহ আহম্মেদ চৌধুরী, >> ওয়েষ্ট উন্ডিজ দলের সফর উপলক্ষে সমন্বয় সভা অনুষ্ঠিত চট্টগ্রাম সার্কিট হাউজে, >> চসিক নির্বাচনে ও লাটিমের সমর্থনে কাউন্সিলর প্রার্থী সমুনের গণসংযোগ, >> চসিক নির্বাচনে কাউন্সিলর পদে লাটিম সমর্থনে গণসংযোগ >> গণসংযোগে ব্যাস্ত সময় পার করছেন স্বতন্ত্র কাউন্সিলর পদপ্রার্থী লায়ন মোহাম্মদ ইলিয়াস।     

রাজধানী ঢাকা শহরকে পরিচ্ছন্ন ও আধুনিক শহরে পরিণত করতে নেওয়া হচ্ছে নানা পদক্ষেপ,

জানুয়ারি ৯, ২০২১,৯:৩৭ অপরাহ্ণ

 
Spread the love

 

মোঃ রিয়াদুল ইসলাম (আফজাল)

 

নাজুক ফুটপাথ, ভাঙাচোরা সড়ক, খোঁড়াখুঁড়ি চলছেই, ভয়াবহ দূষণ সংকট গণশৌচাগারের, মশার উপদ্রব, গণপরিবহনে নৈরাজ্
তবু বেসামাল ঢাকা

রাজধানী ঢাকাকে পরিচ্ছন্ন ও আধুনিক শহরে পরিণত করতে নেওয়া হচ্ছে নানা পদক্ষেপ। তবু বেসামাল ঢাকা। সংকটের শেষ নেই দুই সিটিতে। বারবার উচ্ছেদ সত্ত্বেও দখলমুক্ত হয়নি ফুটপাথগুলো।

ভেঙে গেছে অনেক ফুটপাথ। দীর্ঘদিন সংস্কারের অভাবে জরাজীর্ণ অলি-গলি। অনেক ম্যানহোলে ঢাকনা নেই। উঁচু-নিচু মূল সড়ক, কোথাও আবার এক-দেড় ফুট গর্ত। ফের ট্রাক-পিকআপের দখলে চলে গেছে তেজগাঁও সাতরাস্তা এলাকার সড়কগুলো। বিভিন্ন এলাকায় রাস্তা দখল করে গড়ে উঠেছে ভবন। শীত আসতেই মশার উৎপাতে ঘুম হারাম নগরবাসীর।

বিশ্বের শীর্ষ দূষিত নগরীর তালিকায় বারবার উঠে আসছে ঢাকার নাম। নানা উদ্যোগেও গণপরিবহনে ফেরেনি শৃঙ্খলা। যত্রতত্র বাস থামিয়ে যাত্রী ওঠানামায় যানজটে স্থবির নগরজীবন। গণশৌচাগার সংকটে পুরো শহরটাই যেন পরিণত হয়েছে শৌচাগারে। পার্কিং সংকটে প্রতিনিয়ত

ভোগান্তিতে পড়তে হচ্ছে গাড়ি চালকদের। আবার যত্রতত্র পার্কিংয়ে তৈরি হচ্ছে যানজট। সেবা সংস্থাগুলোর সমন্বয়হীনতায় বছরজুড়ে চলছে খোঁড়াখুঁড়ি।
নাজুক ফুটপাথ : চলাচলের অনুপযোগী হয়ে গেছে রাজধানীর অনেক ফুটপাথ। কোথাও ভেঙে গেছে। কোথাও আবার নেই ম্যানহোলের স্লাব।

মেরুল বাড্ডা থেকে শাহজাদপুর পর্যন্ত বেশ কয়েকটি স্থানে ফুটপাথে স্লাব নেই। গণশৌচাগারের অভাবে ফুটপাথ ঘেঁষে প্রস্রাব করছে মানুষ। বারবার উচ্ছেদ অভিযান চালানোর পরও পল্টন, গুলিস্তান, নিউমার্কেট এলাকার ফুটপাথগুলো এখনো হকারের দখলে। বাধ্য হয়ে অনেকে ফুটপাথ ছেড়ে মূল সড়ক দিয়ে চলাফেরা করছেন। গত ডিসেম্বরেই মানিক মিয়া এভিনিউতে সাইকেল লেনের ওপরে অবৈধ স্থাপনা, পার্কিং ও ভাসমান দোকান উচ্ছেদে একাধিকবার অভিযান চালাতে হয়েছে ডিএনসিসিকে। তবে হকাররা বলছেন, রাজধানীতে কয়েক লাখ পরিবার বেঁচে থাকে ফুটপাথে ও রাস্তায় ব্যবসা করে। নির্দিষ্ট জায়গা পেলে তারাও ফুটপাথে বসতেন না।
তবুও ভাঙাচোরা সড়ক : এক দশকের ব্যবধানে অনেকগুলো ইউলুপ ও ফ্লাইওভার চালুসহ উন্নত হয়েছে ঢাকার সড়ক যোগাযোগ ব্যবস্থা। তারপরও রাজধানীর সড়ক নিয়ে অভিযোগের শেষ নেই। বছরজুড়ে বিভিন্ন সংস্থার খোঁড়াখুঁড়িতে জনভোগান্তি লেগেই থাকছে। রাজধানীর এয়ারপোর্ট থেকে আবদুল্লাহপুর সড়কটি গত কয়েক বছরে একাধিকবার সংস্কার করতে দেখা গেলেও পুরো সড়কটি উঁচু-নিচু। মাঝে মধ্যেই গর্ত। কোথাও উঠে গেছে সুড়কি। আবার কোথাও উঁচু হয়ে আছে জমাটবদ্ধ কংক্রিট। ব্যস্ততম এই সড়কের অধিকাংশ ম্যানহোলের ঢাকনা সড়ক থেকে ২-৩ ইঞ্চি উঁচু বা নিচু, যা দুর্ঘটনার ঝুঁকি বাড়িয়ে দিয়েছে। এ ছাড়া কিছু অভিজাত এলাকা বাদে অধিকাংশ ওয়ার্ডের শাখা সড়ক ও অলি-গলির সংস্কার নেই দীর্ঘদিন। দুই সিটির নতুন ৩৬টি ওয়ার্ডের সড়কের অবস্থা খুবই নাজুক। ২০১৭ সালে গঠিত এসব ওয়ার্ডের মধ্যে দক্ষিণ সিটির কিছু ওয়ার্ডে রাস্তা ও ড্রেনেজ ব্যবস্থার কাজ শুরু হলেও উত্তরে এখনো উন্নয়নের ছোঁয়া লাগেনি। পুরনো ওয়ার্ডগুলোর শাখা সড়ক ও গলিপথগুলোও খানাখন্দে ভরা। ম্যানহোলের ঢাকনা বা স্লাব নেই অনেক স্থানে। অবৈধ দখলে সরু হয়ে গেছে অলি-গলি। এসব গলিপথে যানজট লাগলে তা মুক্ত হতে ঘণ্টা পার হয়ে যাচ্ছে। ডিএনসিসির ভাটারার ছোলমাইদ এলাকার মাদরাসাতুল মানার মাদরাসার সামনেই মাঝরাস্তায় ম্যানহোলের স্লাব নেই দীর্ঘদিন ধরে। ফলে একসঙ্গে দুটি গাড়ি পার হওয়া অসম্ভব। নতুনবাজার থেকে ছোলমাইদ পর্যন্ত বেহাল সড়কটি গত ৭-৮ বছরের মধ্যে সংস্কার হয়নি বলে জানান স্থানীয়রা। খিলক্ষেতের বরুরা এলাকায় ভাঙাচোরা সড়ক দিয়ে যান চলাচলই দুষ্কর। ডিএনসিসির ৪১ নম্বর ওয়ার্ডের সাতারকুল এলাকার সংযোগ সড়কগুলো সরু ও অধিকাংশই কাঁচা। গত নির্বাচনের আগে রাস্তাঘাট সংস্কারকে সর্বোচ্চ গুরুত্ব দিয়েছিলেন এখানকার সব কাউন্সিলর প্রার্থী। স্থানীয় কাউন্সিলর আবদুল মতিন বলেন, অর্থ ছাড় না হওয়ায় নতুন ওয়ার্ডগুলোয় কাজ শুরু হয়নি। তবে অর্থ বরাদ্দ হয়ে আছে। জানুয়ারিতে ছাড় হওয়ার কথা ছিল। এখন শুনছি, করোনার কারণে বিভিন্ন প্রণোদনা ও মেগা প্রজেক্টগুলো চালু রাখতে গিয়ে অর্থের সংকট আছে। মার্চের আগে হবে না।

ফের বেদখল তেজগাঁওয়ের সড়কগুলো : তেজগাঁও ট্রাকস্ট্যান্ডের আশপাশের সংযোগ সড়কগুলো আবারও ট্রাকের দখলে চলে গেছে। রাস্তা দখল করে দিন-রাত চলছে ট্রাক মেরামত ও রং করার কাজ। ডিএনসিসির প্রয়াত মেয়র আনিসুল হক দীর্ঘ ৪০ বছর পর সড়কগুলো উদ্ধার করে যান চলাচলের ব্যবস্থা করেছিলেন। ট্রাক শ্রমিক নেতারা বলছেন, এখানে প্রতিদিন ২ হাজারের বেশি ট্রাক থাকে। ৫ হাজার ট্রাক আসা-যাওয়া করে। এত ট্রাকের ধারণক্ষমতা ট্রাকস্ট্যান্ডের নেই। এ ব্যাপারে ডিএনসিসি মেয়র আতিকুল ইসলাম বলেন, আমরা অভিযানে গেলে ট্রাকগুলো সরে যায়। অভিযানের পর আবার ফিরে আসে। বিষয়টির স্থায়ী সমাধানের জন্য রেল কর্তৃপক্ষের কাছে জমি চাইবে ডিএনসিসি। জমি পাওয়া গেলে সেখানে আন্ডারগ্রাউন্ড এবং মাটির ওপরে মাল্টিলেভেল পার্কিংয়ের ব্যবস্থা করা হবে।

ভয়াবহ দূষণের কবলে ঢাকা : পাঁচ বছরের মধ্যে সর্বাধিক বায়ুদূষণের কবলে এখন ঢাকা। গত ডিসেম্বরজুড়ে ঘুরেফিরে বিশ্বের দূষিত শহরের তালিকায় শীর্ষে উঠে এসেছিল ঢাকার নাম। স্টামফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয়ের বায়ুমন্ডলীয় দূষণ অধ্যয়ন কেন্দ্রের (ক্যাপস) পর্যবেক্ষণে দেখা গেছে,
২০১৬ সালের ডিসেম্বরের প্রথম সপ্তাহে ঢাকায়

বায়ুমান সূচকে গড় দূষণ ছিল ১৮১, ২০১৭ সালে ১৮৯, ২০১৮ সালে ২০৭, ২০১৯ ছিল ১৭৩ এবং ২০২০ সালে সেটা বেড়ে হয় ২৩৭। এর মধ্যে গত ৬ ডিসেম্বর বায়ুমান সূচক ছিল ৩১০, যাকে দুর্যোগপূর্ণ হিসেবে ধরা হয়। সংশ্লিষ্টরা বলছেন, দূষণ রোধে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা ছাড়া বড় বড় উন্নয়ন প্রকল্প

বাস্তবায়ন, উন্মুক্তভাবে নির্মাণসামগ্রী পরিবহন, যানজট, পুরনো গাড়ির ধোঁয়া, রাস্তার ওপর নির্মাণসামগ্রী রাখা, ইটভাটা, বিভিন্ন সেবা সংস্থার বছরজুড়ে খোঁড়াখুঁড়ির কারণে বিষাক্ত হয়ে উঠেছে ঢাকার বাতাস।

গণশৌচাগার সংকটে দূষিত নগর : প্রায় দুই কোটি জনসংখ্যার মেগা সিটি ঢাকায় প্রতিদিন রাজপথে চলাচল করছেন ৫০ লাখের বেশি মানুষ। এই বিপুলসংখ্যক মানুষকে প্রতিনিয়ত হয়রানি হতে হচ্ছে গণশৌচাগারের খোঁজে। নগর

 

Chairman

Md. Riadul Islam (Afzal)
Chairman
www.bdnewstv24.com
 

সর্বশেষ সংবাদ

 

সারাবাংলা

 

 

Site Developed By: Md. Shohag Hossain