আজ রবিবার,১২ই জুলাই, ২০২০ ইং, ২৮শে আষাঢ়, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ, ২১শে জিলক্বদ, ১৪৪১ হিজরী
>> ২৪ ঘণ্টায় করোনা কেড়ে নিল আরও ৪৬ প্রাণ, নতুন শনাক্ত ৩৪৮৯ >> সদরঘাটে ৩৪ জনের প্রাণহানি: দুর্ঘটনার কারণ ও দায়ীদের নাম প্রকাশ করেনি তদন্ত কমিটি >> ঢামেকের করোনা ইউনিটে আরো ১৩ জনের মৃত্যু >> আজ প্রায় ৩ ঘণ্টাব্যাপী চন্দ্রগ্রহণ >> ফের হাইড্রক্সিক্লোরোকুইনের ব্যবহার বন্ধ করল বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা >> করোনায় ২৪ ঘণ্টায় ৪২ মৃত্যু, শনাক্ত ৩১১৪ >> করোনায় দেশে আরও ২ বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকের মৃত্যু >> উদ্ধারকারী জাহাজের ধাক্কায় বুড়িগঙ্গা সেতুতে ফাটল, যানবাহন চলাচল বন্ধ >> ২৪ ঘণ্টায় করোনায় ঝরে গেল আরও ৪৩ প্রাণ, নতুন শনাক্ত ৩৮০৯ >> ভুতুড়ে বিদ্যুৎ বিলের নামে জনগণের রক্ত টেনে নিচ্ছে সরকার : বিএনপি     

রাজধানীর বেশি দূষিত পানির এলাকার তালিকা হাইকোর্টে

মে ১৩, ২০১৯,৭:৩৩ অপরাহ্ণ

 
Spread the love

মোঃ রিয়াদুল ইসলাম (আফজাল),বিডিনিউজটিভি২৪ডটকম :  রাজধানীর যে ১৬টি এলাকায় ওয়াসার পানি বেশি দূষিত তার তালিকা হাইকোর্টে দাখিল করা হয়েছে। এলাকাগুলো হলোÑজুরাইন, দনিয়া, শ্যামপুর, উত্তরার ৪ নম্বর সেক্টর, জিগাতলা, লালবাগ, রাজার দেউড়ী, মালিবাগ, মাদারটেক, বনশ্রী, গোড়ান, রায়সাহেব বাজার, মোহাম্মদপুরের বছিলা, পল্লবী, কাজীপাড়া ও সদরঘাট। গতকাল সোমবার বিচারপতি জে বি এম হাসান ও বিচারপতি মো. খায়রুল আলমের সমন্বয়ে গঠিত হাইকোর্ট বেঞ্চে রিটকারী আইনজীবী তানভীর আহমেদ এ তালিকা দাখিল করেন। সংবাদপত্র এবং সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম থেকে তথ্য সংগ্রহ করে এ তালিকা আদালতে দেওয়া হয়েছে বলে জানিয়েছেন ওই আইনজীবী। আদালতে রিটের পক্ষে শুনানি করেন মো. তানভীর আহমেদ। রাষ্ট্রপক্ষে ছিলেন ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল মোতাহার হোসেন সাজু। পরে এসব তালিকার বিষয়ে নিশ্চিত করেন ডেপুর্টি অ্যার্টনি জেনারেল মোতাহার হোসন সাজু। এদিকে, আদালতের নির্দেশ অনুসারে ঢাকা ওয়াসার কোন কোন এলাকার পানি সবচেয়ে বেশি অনিরাপদ, তাপরীক্ষা করে প্রতিবেদন দাখিল না করায় অসন্তোষ প্রকাশ করেছেন হাইকোর্ট। একই সঙ্গে ঢাকা ওয়াসার পানি পরীক্ষায় যে অর্থ খরচ হবে, তা নির্ধারণ করে স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয়কে আগামীকাল বুধবারের মধ্যে প্রতিবেদন দিতে নির্দেশ দেন আদালত। গতকাল সোমবার ঢাকা ওয়াসার অনিরাপদ পানি পরীক্ষা করে প্রতিবেদন দাখিলের দিন নির্ধারিত ছিল। কিন্তু ওয়াসার পক্ষ থেকে বলা হয়, ঢাকা ওয়াসার পানি পরীক্ষায় প্রচুর অর্থের প্রয়োজন। তখন আদালত অসন্তোষ প্রকাশ করে বলেন, ঢাকা ওয়াসার ১১টি পানির জোন রয়েছে। প্রত্যেকটি থেকে ২ বোতল পানি নিয়েই তো করা যায়। কিন্তু কোনো কথাই শুনছে না স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয়। তারা (স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয়) হাইকোর্টকে হাইকোর্ট দেখাচ্ছে। এর আগে শুনানিকালে পানি পরীক্ষার প্রতিবেদন দাখিলের পরিবর্তে স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয়ের পক্ষ থেকে হাইকোর্টে একটি অগ্রগতি প্রতিবেদন দাখিল করা হয়। ওই প্রতিবেদনে পানি পরীক্ষায় কমিটি গঠন ও কমিটির কার্যপরিধি তুলে ধরা হয়। ওই প্রতিবেদনে ওয়াসাকে মোট ১১টি জোনে ভাগ করে পানি পরীক্ষার কথা বলা হয়। পাশাপাশি অর্থায়ন পাওয়া গেলে চার মাসের মধ্যে পানি পরীক্ষার প্রতিবেদন পাওয়া যেতে পারে বলে প্রতিবেদনে উল্লেখ করা হয়। এরপর আদালত কোন কোন এলাকার পানি বেশি দূষিত ও অনিরাপদ, সেসব এলাকা চিহ্নিত করে জানানোর নির্দেশ দেন। ওয়াসা বা রাষ্ট্রীয় কোনো প্রতিষ্ঠান এর কোনো তথ্য না দিলেও রিটকারী আইনজীবী নিজেই এমন একটি তালিকাসংবলিত তথ্য আদালতে জমা দেন।

 

Chairman

Md. Riadul Islam (Afzal)
Chairman
www.bdnewstv24.com
 

সর্বশেষ সংবাদ

 

সারাবাংলা

 

 

Site Developed By: Md. Shohag Hossain