আজ শুক্রবার,২৫শে মে, ২০১৮ ইং, ১১ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ, ১০ই রমযান, ১৪৩৯ হিজরী
>> বিদেশি কর্মীদের মাধ্যমে বাংলাদেশ থেকে প্রতি বছর কয়েকশ কোটি ডলারের সমপরিমাণ অর্থ চলে যাচ্ছে দেশের বাইরে। শুধু ভারতেই যাচ্ছে প্রায় ৫০০ কোটি ডলার। বাংলাদেশের ব্যবসায়ীরা বলছেন, দক্ষ জনশক্তির অভাবেই বাংলাদেশ কোটি কোটি ডলার হারাচ্ছে। খবর বিবিসি বাংলার। বাংলাদেশ অ্যামপ্লয়ার্স অ্যাসোসিয়েশনের সাবেক প্রেসিডেন্ট ব্যবসায়ী নেতা ফজলুল হক বলছেন, বাংলাদেশের বিভিন্ন বহুজাতিক কোম্পানি, গার্মেন্টস, ওষুধ কোম্পানি কিংবা অন্যান্য প্রতিষ্ঠানে বর্তমানে কাজ করছেন অনেক বিদেশি নাগরিক। এই ব্যবসায়ী জানান, এসব কর্মীর মধ্যে শীর্ষে আছে ভারত ও শ্রীলঙ্কার নাগরিকরা। এর পরে পাকিস্তান, ফিলিপিন, কোরিয়া ও চীন থেকে আসা কর্মীরা। এই তৈরি পোশাক ব্যবসায়ী নেতা বলেন, ‘দেশে মিড লেভেল ও টপ লেভেলের প্রফেশনালদের বড়ধরনের ঘাটতি রয়েছে। প্রচলিত শিক্ষাব্যবস্থায় শিক্ষিত হয়ে আসা কর্মীরা চাহিদা মেটাতে পারছে না। ফলে বাধ্য হয়ে বিদেশ থেকে এসব কর্মী আমদানি করতে হচ্ছে।’ গবেষণা সংস্থা সেন্টার ফর পলিসি ডায়ালগ সিপিডি বলছে, তাদের সাম্প্রতিক এক গবেষণায় দেখা গেছে, দেশের ২৪ শতাংশ তৈরি পোশাক কারখানাতে বিদেশি কর্মীরা কর্মরত আছেন। দুই বছর আগে সিপিডির আরেক গবেষণার তথ্য অনুসারে, বাংলাদেশ থেকে বিভিন্ন দেশে যে রেমিট্যান্স যায় তার মধ্যে শুধু ভারতেই যায় ৫০০ কোটি ডলারের মতো, জানান সিপিডির গবেষক খন্দকার গোলাম মোয়াজ্জেম হোসেন। তিনি জানান, দক্ষতার ঘাটতির কারণেই বিদেশি কর্মীদের হাতে চলে যাচ্ছে দেশের অর্থ। কিন্তু বর্তমানে দেশে বিভিন্ন সরকারি-বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয় থেকে প্রতিবছর ডিগ্রি নিয়ে বের হচ্ছে লাখ লাখ শিক্ষার্থী। কিন্তু তারপরও কেন বাইরের দেশের কর্মীদের ওপর নির্ভর করতে হচ্ছে? এ প্রশ্নে ব্যবসায়ী ফজলুল হক বলেন, পেশাগত দক্ষতার অভাবের পাশাপাশি ভাষা-গত দক্ষতারও অভাব রয়েছে। বিশেষ করে ইংরেজি ভাষার দক্ষতা এবং পেশাগত কৌশলের ঘাটতি রয়েছে। ‘কারিগরি শিক্ষার অভাবটাই প্রকট। আমাদের এখানে ইউনিভার্সিটিগুলোতে যে ডিগ্রি দেয়া হচ্ছে সেগুলো বেশিরভাগই আমাদের ইন্ডাস্ট্রিকে ফোকাস করে দেয়া হচ্ছে না। তাদের ফোকাসটা অন্য জায়গায়। ফলে যেরকম গ্রাজুয়েট দরকার সেরকম আমরা পাচ্ছি না।’ একদিকে দেশের ভেতরে বেকার এবং শিক্ষিত বেকারের সংখ্যা যেখানে প্রকট সেখানে দেশ থেকে প্রবাসী অর্থ চলে যাওয়ার বিষয়টিকে দুর্ভাগ্যজনক বলে মন্তব্য করেন গবেষক খন্দকার গোলাম মোয়াজ্জেম হোসেন। প্রবাসী বাংলাদেশিদের অর্থে দেশ সচল করার কথা বলা হচ্ছে একদিকে কিন্তু অন্যদিকে বিদেশি কর্মীদের হাত দিয়ে দেশ থেকে চলে যাচ্ছে বহু কোটি ডলার। তার মতে, ‘দেশের ভেতরে যারা গ্র্যাজুয়েট হচ্ছেন, তারাও উপযুক্ত মানসম্পন্ন নন। তাদের দক্ষতার অভাব রয়েছে।’ ‘আপনি আশ্চর্য হবেন যে, এক-তৃতীয়াংশ বেকার দেখতে পাচ্ছি যারা গ্র্যাজুয়েশন শেষ করেছেন, অন্যদিকে দেশের ভেতরেই বিদেশিরা কাজ করছেন এবং দেশ থেকে অর্থ নিয়ে যাচ্ছেন। একদিকে অ্যামপ্লয়াররা প্রফেশনাল লোক খুঁজছেন, দেশের ভেতরে পাচ্ছে না। অন্যদিকে বিদেশি প্রফেশনালরা আমাদের এখানে কাজ করছেন, আমাদের জায়গাগুলো তাদের দিয়ে দিতে হচ্ছে, এটা খুবই দুর্ভাগ্যজনক।’ গবেষক মোয়াজ্জেম হোসেন বলেন, তৈরি পোশাকে যে উন্নতি হয়েছে তার বড় অংশই এসেছে দক্ষ শ্রমিকদের হাত ধরে। সেখানে ম্যানেজমেন্ট লেভেলে দক্ষতার ঘাটতির বিষয়টি থেকে গেছে উপেক্ষিত। bdnewstv24.com / riadul islam afzal >> ‘খুলনার মতো জাতীয় নির্বাচন হলে দেশে বিপর্যয় নেমে আসবে’ >> স্বাধীনতার জন্য হুইল চেয়ারে বসে লড়াই করে শহীদ হলেন ফিলিস্তিনি যোদ্ধা ফাদিমে >> পবিত্র মাহে রমজানের সওগাত >> দুই সিটি নির্বাচন: বিরোধী জোটের চার উপকমিটি >> চট্টগ্রাম অনলাইন প্রেস ক্লাব আয়োজিত মহান স্বাধীনতা দিবসের আলোচনা সভায় বক্তারা >> চট্টগ্রাম অনলাইন প্রেস ক্লাবের মানববন্ধনে বক্তারা- সাংবাদিক সুমন হাসানের উপর নির্যাতনকারী অভিযুক্তদের উপযুক্ত শাস্তির আওতায় না আনলে কঠোর কর্মসূচির হুঁশিয়ারি >> অনলাইন নিউজ পোর্টাল নিবন্ধনের দাবিতে আবেদনপত্র পেশ ডিজিটাল বাংলাদেশ বির্নিমানে অনলাইন গণমাধ্যমের বিকল্প নেই -হাসানুল হক ইনু >> চট্টগ্রাম অনলাইন প্রেস ক্লাবের সভা অনু্ষ্ঠিত >> রাষ্ট্রপতির বক্তব্য সমর্থন করলেন সাবেক রাষ্ট্রপতি     

তোমরা কইতে পারো এ বুইড়া, তাড়াতাড়ি মর : রাষ্ট্রপতি

ফেব্রুয়ারি ৭, ২০১৮,১১:১২ অপরাহ্ণ

 
Spread the love

বিডি নিউজ টিভি ২৪ ডট কম:যশোর: রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ বলেছেন, বিশ্ববিদ্যালয় কেবল পাঠদান কেন্দ্র নয়, বরং তা জ্ঞান সৃষ্টি ও চর্চার এক অনন্য পাদপীঠ। মুক্তচিন্তা, সমকালীন ভাবনা, জ্ঞান-বিজ্ঞানের নবতর অভিযাত্রাসহ সংস্কৃতি চর্চা, সৃজনশীল কর্মকাণ্ড শিক্ষার্থীদের জানার পরিধিকে যেমন বিস্তৃত করে তেমনি তাদেরকে পরিণত করে বিশ্ব নাগরিকে।

তিনি বলেন, লেখাপড়ার পাশাপাশি সৃজনশীল কর্মকাণ্ড শিক্ষার অন্যতম অনুসঙ্গ। আগামী প্রজন্মকে আধুনিক বাংলাদেশের নির্মাতা হিসেবে প্রস্তুত করতে এবং সব স্তরে নেতৃত্বদানে সক্ষম ও দক্ষ নাগরিক হিসেবে গড়ে তুলতে হলে তাদের মধ্যে মানবিক মূল্যবোধের জাগরণ ঘটাতে হবে। এক্ষেত্রে বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক-শিক্ষার্থী, গবেষক, অভিভাবক, ছাত্রসংগঠনসহ সবাইকে সম্মিলিতভাবে অবদান রাখতে হবে। বুধবার বিকেলে যশোর বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিদ্যালয়েরর সমাবর্তন অনুষ্ঠানে সভাপতির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।

রাষ্ট্রপতি বলেন, আজকের পৃথিবী দ্রুত পরিবর্তনশীল এবং প্রবল প্রতিযোগিতাপূর্ণ। বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশেষ করে তথ্যপ্রযুক্তির বৈপ্লবিক বিকাশ বিদ্যমান বিশ্বব্যবস্থায় বাংলাদেশের মতো উন্নয়নশীল দেশগুলোকে আরও কঠিন চ্যালেঞ্জের মুখোমুখি করে তুলছে। কারণ, এ বিশ্ব ব্যবস্থায় যোগ্যতাই টিকে থাকার একমাত্র মানদণ্ড। তাই সময়ের প্রয়োজনেই শিক্ষার্থীদেরকে তথ্যপ্রযুক্তিতে দক্ষ মানবসম্পদ হিসেবে গড়ে তুলতে হবে।

রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ বলেন, শোষণমুক্ত একটি সমৃদ্ধ ‘সোনার বাংলা’ বিনির্মাণই ছিল আমাদের মহান মুক্তিযুদ্ধের অন্যতম অঙ্গীকার। বর্তমান সরকার মহান মুক্তিযুদ্ধের সেই লক্ষ্য বাস্তবায়নে সুনির্দিষ্ট পরিকল্পনা নিয়ে এগিয়ে যাচ্ছে। ইতোমধ্যে ডিজিটাল বাংলাদেশ, রূপকল্প ২০২১, রূপকল্প ২০৪১ ঘোষণার মাধ্যমে দেশকে উন্নয়নের মহাসড়কে যুক্ত করা হয়েছে। গৃহীত হয়েছে আগামী ২০৩০ সালের মধ্যে টেকসই উন্নয়নের লক্ষ্যমাত্রা পূরণে কার্যকর পদক্ষেপ। মাথাপিছু আয়, জাতীয় প্রবৃদ্ধি, নারীর ক্ষমতায়ন, স্যানিটেশন, কৃষি, শিক্ষা, স্বাস্থ্য ইত্যাদি ক্ষেত্রে আমরা প্রশংসনীয় সাফল্য অর্জন করেছি। পদ্মা সেতু এখন দৃশ্যমান। বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট মহাকাশে উৎক্ষেপণের অপেক্ষায় রয়েছে। এসব অর্জনকে আরও এগিয়ে নেয়ার জন্য মানসম্মত বিজ্ঞান শিক্ষা ও তথ্যপ্রযুক্তি খাতে আন্তর্জাতিক মানের দক্ষতা অর্জনের বিকল্প নেই।

রাষ্ট্রপতি গ্র্যাজুয়েটদের উদ্দেশ্যে বলেন, ‘তোমরা আজ গ্র্যাজুয়েট, দেশের উচ্চতর দক্ষতা সম্পন্ন মানবসম্পদ। দেশের ভবিষ্যৎ নির্ভর করছে তোমাদের ওপর। তোমাদের তারুণ্য, জ্ঞান, মেধা ও প্রজ্ঞা হবে দেশের উন্নয়নে প্রধান চালিকাশক্তি। দেশ ও জনগণের কাছে তোমাদের আছে ঋণ। একজন বিবেকবান নাগরিক হিসেবে সেই ঋণ তোমাদের পরিশোধ করা উচিত।

তিনি বলেন, দেশের সর্বোচ্চ বিদ্যাপীঠ থেকে সর্বোচ্চ ডিগ্রি অর্জনকারী একজন গ্র্যাজুয়েট হিসেবে সবসময় সত্য ও ন্যায়কে সমুন্নত রাখবে। দুর্নীতি ও অন্যায়ের প্রতিবাদ করবে তোমরা। রাষ্ট্রের বিবেকবান নাগরিক হিসেবে তোমাদের কাছে প্রত্যাশা করি, তোমরা কখনও ডিগ্রির মর্যাদা, ব্যক্তিগত সম্মানবোধ আর নৈতিকতাকে ভূলুণ্ঠিত করবে না। আর একটা কথা বলি, কর্ম উপলক্ষে তোমরা পৃথিবীর যে প্রান্তেই থাকো না কেন, এ দেশ ও দেশের জনগণের কথা ভুলবে না। ভুলবে না খেটে খাওয়া সাধারণ জনগণের কথা।

বক্তব্যের শুরুতে রাষ্ট্রপতি স্মরণ করেন জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে। এছাড়া ভাষা আন্দোলন ও স্বাধীনতা সংগ্রামে জীবন দানকারী বীরদের স্মরণ করেন তিনি।

সেইসঙ্গে মহান মুক্তিযুদ্ধে যশোর জেলা প্রথম হানাদার মুক্ত হয় এবং বাংলাদেশের প্রথম ঘোষিত ডিজিটাল জেলা উল্লেখ করে এ জনপদের বরেণ্য গুণীজনদের স্মরণ করেন রাষ্ট্রপতি।

গ্র্যাজুয়েটদের উদ্দেশ্যে তিনি বলেন, আপনারা এক নতুন জীবনে পদার্পণ করলেন। যেখানে পিতা-মাতা, সমাজ, দেশ এবং মানবতার প্রতি রয়েছে গুরুদায়িত্ব। একজন মানুষ হিসেবে এ দায়িত্ব পালনে আপনাদের সদা প্রস্তুত থাকতে হবে।

যশোর বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ড. মো. আনোয়ার হোসেন সমাবর্তনে আগত রাষ্ট্রপতি, সমাবর্তন বক্তা অধ্যাপক ড. রবার্ট হিউবার, বিশেষ অতিথি অধ্যাপক আব্দুল মান্নানসহ সব অতিথিদের ধন্যবাদ ও কৃতজ্ঞতা জ্ঞাপন করেন।

বক্তব্যে গ্র্যাজুয়েটদের সঙ্গে মজা করে রাষ্ট্রপতি আবদুল হামিদ বলেন, ‘আগের মতো ফ্রি স্টাইলে চললে চলবে না। এখন অনেক দায়িত্ব পড়ে গেছে তোমাদের ওপর।’

দ্বিতীয় বারের মতো রাষ্ট্রপতি হওয়ার প্রসঙ্গ তুলে মো. আবদুল হামিদ বলেন, ‘মান্নান সাব (বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরি কমিশনের চেয়ারম্যান) বিষয়টি তুলেছেন। উনি মনে হয় খুশি হইছেন। কিন্তু তোমরা তো বেশি খুশি হও নাই। কারণ বুইড়ারা বাতিল না হইলে তো তোমাদের জায়গা হবে না।

এ সময় নিজের এলাকার উদাহরণ দিয়ে রাষ্ট্রপতি বলেন, ‘আমাগো অঞ্চলে একটা নিয়ম ছিল। বড় ভাইয়ের আগে ছোট ভাই বিয়া করতে পারতো না। বলা হইতো, সামনে রেড লাইট আছে। তোমরা তাই কইতে পারো এই বুইড়া, তাড়াতাড়ি মর’ বলে হেসে দেন রাষ্ট্রপতি।

রাষ্ট্রপতি আরও বলেন, ‘যশোর-খুলনা অঞ্চলের মানুষ অনেক শুদ্ধ ভাষায় কথা কয়। তাই এইখানে বেশি কথা কইতে চাই নাই। এইখানে বাংলা ভাষা বলতে গিয়া না জানি কি বিপদে পড়তে হয়।’

বক্তব্যের একেবারে শেষ অংশে রাষ্ট্রপতি বলেন, ‘ছাত্র-ছাত্রীদের হতাশ হওয়ার দরকার নেই। কেউ হতাশ হইয়েন না। কারণ ওপর থেইকা যদি ডাক আইসা পড়ে, তাইলে চইলা যামু।’

এতে বিশেষ অতিথির বক্তব্যে বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরি কমিশনের চেয়ারম্যান অধ্যাপক আব্দুল মান্নান বলেন, উন্নত জাতি গঠনের অপরিহার্য শর্ত হলো দূরদর্শী, সিদ্ধান্ত গ্রহণে দক্ষ নাগরিক তৈরি এবং সচেতনতা বৃদ্ধিসহ জ্ঞানের প্রসার ঘটানো।

রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদের সভাপতিত্বে সমাবর্তন অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন- সংসদ সদস্য স্বপন ভট্টাচার্য, আবদুল হাই, এস এম জগলুল হায়দার, শেখ আফিল উদ্দিন, ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য ড. হারুন-অর রশীদ আসকারী, খুলনা প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য ড. মোহাম্মদ আলমগীর, মাওলানা ভাসানী বিজ্ঞান ও প্রযুুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য ড. মোহাম্মদ আলাউদ্দিন, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের উপ-উপাচার্য অধ্যাপক ড. নাসরীন আহমাদ প্রমুখ।

এবারের সমাবর্তনে বিশ্ববিদ্যালয়ের ৫৭০ জন গ্র্যাজুয়েট অংশ নেন। তাদের মধ্যে আটজন চ্যান্সেলর স্বর্ণপদক, পাঁচজন ভাইস চ্যান্সেলর পদক এবং ৫৬ জন ডিনস অ্যাওয়ার্ড পান।

 

Chairman

Md. Riadul Islam (Afzal)
Chairman
www.bdnewstv24.com
 

সর্বশেষ সংবাদ

 

সারাবাংলা

 

 

Site Developed By: Md. Shohag Hossain